ঢাকা, মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২, ১৪ই আষাঢ় ১৪২৯

মহাসড়কে মোটরসাইকেল: কর্তৃপক্ষের ‘গলার কাঁটা’

নিজস্ব প্রতিবেদক : | প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার ২৩ জুন ২০২২ ১১:০৭:০০ পূর্বাহ্ন | জাতীয়

 

দেশের জাতীয় মহাসড়কগুলোতে মোটরসাইকেল চলাচল বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার প্রস্তাবনা এসেছে। এ নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে আলোচনাও চলছে। কেউ বলছেন, মহাসড়কে বেশিরভাগ দুর্ঘটনার মূল কারণ দুই চাকার এই মোটরসাইকেল। এটিকে মহাসড়কে চলতে দেওয়া উচিত নয়। যদিও মোটরসাইকেল রাইডাররা বলছেন, সড়কে তাদের জন্য পৃথক লেনের দাবি বহুদিনের। সেটা না করে বন্ধ করে দিলে তা হবে ‘হাতের সমস্যায় হাত কেটে ফেলা’র মতো সিদ্ধান্ত। এ বিষয়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বলছে, এক্ষেত্রে জনসাধারণের চাওয়াকেই গুরুত্ব দেওয়া হবে। কারণ, রাষ্ট্র বা রাষ্ট্রীয় আইন মানুষের কল্যাণে।

গত ১৯ জুন আসন্ন ঈদুল আজহা সামনে রেখে সড়কে যান চলাচল নির্বিঘ্ন করতে অংশীজনের সঙ্গে বৈঠকে বসে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। এতে সড়ক ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী ও বিআরটিএ চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার, বাস মালিক সমিতিসহ অংশীজন বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে গেল ঈদুল ফিতরের সময় দেশে সড়ক দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি বেড়ে যাওয়ার পেছনে মহাসড়কে মোটরসাইকেল চলাচলের বড় ভূমিকার বিষয়টি আলোচনায় আসে। এ অভিজ্ঞতা থেকেই আসন্ন ঈদে মহাসড়কে মোটরসাইকেল চালানোয় নিষেধাজ্ঞা চায় অনেকে। সংশ্লিষ্টদের দাবি, মহাসড়কে বেশিরভাগ দুর্ঘটনার কারণ মোটরসাইকেল। ঈদে সেটি আরও বেশি হয়। গত ঈদুল ফিতর তার দৃষ্টান্ত।

এ নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে মত এসেছে। অনেকে বলছেন, এটি মাথা ব্যথা সারাতে ‘মাথা কেটে ফেলার মতো’ সিদ্ধান্ত হবে। আবার কেউ বলছেন, তাহলে নসিমন করিমনও তো বলবে এ কথা। তাদেরও তো একই সমস্যার দরুণ মহাসড়কে চলাচল করতে দেওয়া হয় না।

পরিবহন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মূল গলদ সিস্টেমে। মোটরসাইকেল আমদানির পথ খোলা, বিক্রি ও রেজিস্ট্রেশন দেওয়া হচ্ছে হরদম। আবার এ-ও বলা হচ্ছে, মোটরসাইকেল অমুক জায়গায় চলবে, তমুক জায়গায় চলতে পারবে না। এগুলো তো পেশাদারিত্ব না। সমস্যার মূলে হাত দিতে হবে। অভিভাবক বা কর্তৃপক্ষকে দায়িত্ববান হতে হবে। তাদের ভেবেচিন্তে কাজ করতে হবে। কর্তৃপক্ষকে সমস্যা তৈরি না করে বরং সমাধান খুঁজে বের করতে হবে। তবে মহাসড়কে মোটরসাইকেল চলতে দেওয়া যাবে না।

মহাসড়কে মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে অ্যাপ-বেইজড ড্রাইভারস ইউনিয়ন অব বাংলাদেশের (ডিআরডিইউ) সাধারণ সম্পাদক বেলাল আহমেদ জাগো নিউজকে বলেন, একটা বাহন যদি চলে, সেটা যদি যান্ত্রিক হয়, তাহলে তার জন্য রাস্তায় চলাচলের একটা ব্যবস্থা রাখা উচিত। যিনি বাইক নিয়ে চলাচল করবেন, তিনি মহাসড়কে উঠতে পারবেন না- কেন? সড়কে বড় গাড়িগুলো তাদের পাত্তা দেয় না। তাই তো? এটার জন্য একটা লেনের ব্যবস্থা করতে আমরা বহু আগ থেকেই দাবি করে আসছি। সেটা না করে বন্ধ করে দেওয়ার কথা কেন আসছে? আপনার হাতে ব্যথা হলে কি হাতটা কেটে ফেলবেন?