ঢাকা, বুধবার ২৯ জুন ২০২২, ১৪ই আষাঢ় ১৪২৯

হাতেকলমে শিক্ষায় আগ্রহ গ্রামের শিক্ষার্থীদের, শহরে মুখস্থবিদ্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক : | প্রকাশের সময় : সোমবার ২০ জুন ২০২২ ১০:৩০:০০ পূর্বাহ্ন | শিক্ষা

গ্রামের শিক্ষার্থীদের চেয়ে শহরের শিক্ষার্থীরা ফলাফলে সবসময় এগিয়ে। ভালো ফল অর্জন করায় পরের ধাপে নামি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও ঠাঁই মেলে তাদেরই। তবে নতুন শিক্ষাক্রমে পরিস্থিতি পুরোপুরি উল্টো। নতুন কারিকুলামে গ্রামের শিক্ষার্থীরা আনন্দের সঙ্গে হাতে-কলমে শিখছে। আর মুখস্তবিদ্যা না থাকায় পিছিয়ে পড়ছে শহরের নামি দামি স্কুলের শিক্ষার্থীরা। দেশের ৬২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চলমান ‘জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখা ২০২১’ -এর পাইলটিং কার্যক্রমে এমন তথ্য উঠে এসেছে।

শিক্ষাবিদ ও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গ্রামের শিক্ষার্থীরা দ্রুত নতুন শিক্ষাক্রম আয়ত্ত করতে শিখছে। তারা নতুন ধারণার ওপর প্রশ্ন করছে। শিক্ষক-অভিভাবকরা তাদের আগ্রহে খুশি। গৃহশিক্ষক ছেড়ে গ্রামের শিক্ষার্থীরা গ্রুপ স্টাডি তথা দলভিত্তিক অধ্যয়ন করছে। তারা নতুন শিক্ষাক্রম উপভোগ করছে।

গ্রামের শিক্ষার্থীরা দ্রুত নতুন শিক্ষাক্রম আয়ত্ত করতে শিখছে। তারা নতুন ধারণার ওপর প্রশ্ন করছে। শিক্ষক-অভিভাবকরা তাদের আগ্রহে খুশি। গৃহশিক্ষক ছেড়ে গ্রামে শিক্ষার্থীরা দলভিত্তিক স্টাডি করছে। তারা নতুন শিক্ষাক্রম উপভোগ করছে। অন্যদিকে শহরের শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিপরীত চিত্র দেখা যাচ্ছে। তারা বাস্তবভিত্তিক শিক্ষাগ্রহণে অনীহা দেখাচ্ছে। 

অন্যদিকে শহরের শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিপরীতচিত্র দেখা যাচ্ছে। তারা বাস্তবভিত্তিক শিক্ষাগ্রহণে অনীহা দেখাচ্ছে। অকারণে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় ভুগছে। মুখস্থবিদ্যানির্ভর পড়াশোনা করে দ্রুত পরীক্ষা দিতে এবং ভালো ফল পেতে আগ্রহ দেখাচ্ছে। নতুন শিক্ষাক্রমে এমন সুযোগ না থাকায় তারা অনেকটাই হতাশ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দেশের ৬২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চারমাস ধরে নতুন শিক্ষাক্রমের ষষ্ঠ শ্রেণির পাইলটিং কার্যক্রমের আওতায় ক্লাস শুরু হয়েছে। হাতে-কলমে শিক্ষার্থীদের দৈনন্দিন কাজ, নিজের ও অন্যদের প্রতি দায়িত্ব ও করণীয় এবং চারপাশের গুরুত্বপূর্ণ বিষয় শেখানো হচ্ছে। সেখানে বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে মুখস্থবিদ্যার চেয়ে বাস্তবমুখী শিক্ষা। এর প্রতিক্রিয়া ও প্রভাব দেখতে পাইলটিং কার্যক্রম চলা বিদ্যালয়গুলো পরিদর্শন করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন জ্যেষ্ঠ অধ্যাপক এবং জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) বিশেষজ্ঞরা।

তারা জানান, ধারণা করা হচ্ছিল—নতুন শিক্ষাক্রমে শহরের শিক্ষার্থীরা ভালো করবে। গ্রামের শিক্ষার্থীরা আরও পিছিয়ে যেতে পারে। বাস্তবে ঘটছে উল্টো। শহরের নামি-দামি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা পিছিয়ে পড়ছে। তারা নতুন কারিকুলামকে আয়ত্ত করতে হিমশিম খাচ্ছে। নতুন বিষয়গুলো বুঝে উঠতে শহরের শিক্ষার্থীরাই বেশি সময় নিচ্ছে। শহরের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরাই তুলনামূলক বেশি সচেতন। ফলে তারা সন্তানদের লেখাপড়া নিয়ে উৎকণ্ঠায় রয়েছেন।

পাইলটিং কার্যক্রম চলা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলে পরিদর্শনে যাওয়া শিক্ষাবিদ এবং শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের বিশেষজ্ঞরা এ বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন।

ভালো ফল অর্জন করা অধিকাংশ শিক্ষার্থী মুখস্তবিদ্যার ওপর নির্ভরশীল। পাঠ্যবই মুখস্ত করে তারা ভালো ফল অর্জন করেছে। এ সূত্র ধরে নামি-দামি স্কুলে ভর্তির সুযোগ পেয়েছে। নতুন শিক্ষাক্রমে মুখস্তবিদ্যা দিয়ে ভালো ফল অর্জনের সুযোগ নেই। এজন্য তারা পিছিয়ে পড়ছে। 

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভালো ফল অর্জন করা অধিকাংশ শিক্ষার্থী মুখস্থবিদ্যার ওপর নির্ভরশীল। পাঠ্যবই মুখস্থ করে তারা ভালো ফল অর্জন করেছে। এ সূত্র ধরে নামি-দামি স্কুলে ভর্তির সুযোগ পেয়েছে তারা। নতুন শিক্ষাক্রমে মুখস্থবিদ্যা দিয়ে ভালো ফল অর্জনের সুযোগ নেই। এজন্য তারা পিছিয়ে পড়ছে। এমন পরিস্থিতি খোদ ঢাকার গভর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি হাই স্কুলের শিক্ষার্থীদের। নামি এ স্কুলের শিক্ষার্থীদের বাস্তবমুখী শিক্ষার সুযোগ কম। ফলে আগের মতো তাদের পাঠ্যবইয়ের ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে।

ঢাকার গভর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি হাই স্কুলের মতোই চিত্র দেখা গেছে বরিশাল জেলা স্কুলের শিক্ষার্থীদেরও। অথচ মফস্বলের বা শহরের তুলনামূলক কম খ্যাতিসম্পন্ন স্কুলের শিক্ষার্থীরা নতুন এ শিক্ষাক্রমে খুব সহজে মানিয়ে নিতে পারছে। তারা এ কারিকুলাম উপভোগ করছে।

তবে গভর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি হাই স্কুলের শিক্ষার্থীরা নতুন শিক্ষাক্রমে পিছিয়ে পড়ছে- এটা মানতে নারাজ প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ মো. আবু সাঈদ ভূঁইয়া। তার ভাষ্য, ‘নতুন শিক্ষাক্রম শিক্ষার্থীদের জন্য চ্যালেঞ্জ তৈরি করেছে।’