এই মাত্র পাওয়া :

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১

উপ নির্বাচন সিলেট-৩: বাবুল নন এসিতে, আতিক এসিতে

বিভাগ : রাজনীতি প্রকাশের সময় :৪ জুন, ২০২১ ৭:১১ : অপরাহ্ণ

সিলেট ব্যুরো :

সিলেট-৩ আসনের উপ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির সম্ভাব্য দুই প্রার্থীকে নিয়ে ছুলছেড়া বিশ্লেষণ করছেন স্থানীয় নেতাকর্মীরা। তাদের যোগ্যতা নিয়ে তুমুল আলোচনা হচ্ছে চা এর টেবিলে। এই প্রার্থীদের দলের প্রতি, কর্মীর প্রতি দরদ নিয়েও চলছে ব্যাপক আলোচনা। এই দুই প্রার্থী হলেন জাতীয় পার্টির সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য আতিকুর রহমান আতিক ও বিশিষ্ট শিল্পপতি জাপার কেন্দ্রীয় নেতা নজরুল ইসলাম বাবুল। কর্মীদের পর্যবেক্ষণে নানান কারণে এগিয়ে বাবুল। আর আতিককে মেনে নিতে পরছেন না অনেকে।

জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুদ্দিন খালেদ জানান, আতিকুর রহমান আতিক জাতীয় পার্টির বর্ষিয়ান নেতা। একসময় দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ছিলেন। সিলেট-৩ আসন থেকে সংসদ নির্বাচন করেছেন তিনবার। অন্য জায়গা থেকে সংসদ নির্বাচন করেছেন তিনবার। কিন্তু কোনোবারই তিনি জয়লাভ করতে পারেননি। সিলেটে জন্ম নেয়া এই নেতা নানান কারণে অধিকাংশ সময় অবস্থান করেন রাজধানীতে। মাঝে মধ্যে সিলেটে এলেও নেতাকর্মীদের সাথে তেমন একটা সখ্যতা নেই। নিজস্ব কিছু কর্মীর সাথে যোগাযোগ রাখেন। এতে স্থানীয় নেতাকর্মীরা দূরে থাকেন আতিকের কাছ থেকে। পক্ষান্তরে সিলেটের বিশিষ্ট শিল্পপতি নজরুল ইসলাম বাবুল জাতীয় পার্টিতে যোগদানের পর থেকে দলীয় নেতাকর্মীদের ব্যাপারে সচেতন ভূমিকা পালন করছেন। দলীয় নেতাকর্মীদের খোঁজ খবর রাখছেন সার্বক্ষণিক। ওই অবস্থায় বাবুলকে ঘিরে আশার আলো দেখছেন কর্মীরা।

খালেদ বলেন, সিলেট-৩ আসনে উপ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নজরুল ইসলাম বাবুল ও আতিকুর রহমান আতিক উভয়েই চেষ্টা করছেন লাঙ্গল প্রতীক পাওয়ার জন্যে। এ জন্যে উভয়ে চেষ্টা চালাচ্ছেন। নজরুল ইসলাম বাবুল মাঠ থেকে শুরু করে কেন্দ্র পর্যন্ত ওই চেষ্টা চালাচ্ছেন। মাঠে দলীয় নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষের সাথে ধারাবাহিক মতবিনিময় করছেন স্বশরীরে উপস্থিত থেকে। বিভিন্ন এলাকায় সভা সমাবেশ করে চলেছেন। করছেন কর্মী সভা। উপ নির্বাচনে লাঙ্গল প্রতীকের বিজয় নিশ্চিত করতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানাচ্ছেন কর্মীদের প্রতি। একই সঙ্গে কেন্দ্রের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে লাঙ্গল প্রতীক পাওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন বাবুল। কেন্দ্র থেকে মাঠ পর্যবেক্ষণ করে যাচ্ছেন নেতৃবৃন্দ। ইতিবাচক মনোভাব সৃষ্টি হয়েছে বাবুলের প্রতি। পক্ষান্তরে আতিকুর রহমান আতিক মাঠে অবস্থান না নিয়েই নিজ বলয়ের কর্মীদের দিয়ে গণসংযোগ চালাচ্ছেন। মাত্র একবার এসে তিনি কয়েকজনের সাথে সাক্ষাত শেষে ঢাকায় ফিরে গেছেন। কেন্দ্রের সাথে তদবির করে লাঙ্গল প্রতীক পাওয়ার জন্যে চেষ্টা করছেন।

খালেদ জানান, ঢাকা-সিলেট রোডে দেখা যায় নন এসি পরিবহনগুলো দ্রুততিতে এগিয়ে চলে। এসি গাড়িগুলো পরে থাকে পেছনে। কারণ এসি গাড়িগুলো রাস্তায় চলাচল করে ভাঙাচুরা দেখে। এজন্যে ওইসব গাড়ি এগিয়ে যায় ধীর গতিতে। আর নন এসি গাড়িগুলো সকল নিয়ম কানুন মেনেও দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। কাক্সিক্ষত সময়ে তারা নির্ধারিত গন্তব্যে পৌঁছে। এখানে নজরুল ইসলাম বাবুল এখন নন এসি পরিবহনে যাত্রী হয়ে যাত্রা করেছেন। কাক্সিক্ষত গন্তব্যে পৌঁছার বিষয়টি এখন সময়ের ব্যপার মাত্র। এসি গাড়ি যাত্রী হয়ে যাত্রা করেছেন আতিকুর রহমান আতিক। এই অবস্থায় তৃণমুল থেকে দাবি উঠেছে বাবুলকে লাঙ্গল প্রতীক বরাদ্দ দেয়ার জন্যে। নতুন যোগ্য এই প্রার্থী সফলতা এনে দিতে পারেন দলের জন্যে।

Print Friendly and PDF

ফেইসবুকে আমরা