এই মাত্র পাওয়া :

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৪ মার্চ ২০২১

বিশেষ সম্পাদকীয়

জেল জুলুম সত্য প্রকাশ থেকে সরাতে পারেনি দৈনিক সাঙ্গুকে

বিভাগ : ফিচার প্রকাশের সময় :১ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১২:৫২ : পূর্বাহ্ণ




  • কবির হোসেন সিদ্দিকী:

সময়টা এমন যে একটি সংবাদ কারো পক্ষে গেলে সম্পাদকে বাহবা দেওয়া হয়। আর কোনো কারণে বিপক্ষে গেলেই উকিল নোটিশ, মামলা, হামলা আর কত কি! প্রতিদিন এসবকে ধারণ করেই সত্য প্রকাশ করে চলছে দৈনিক সাঙ্গু।
সত্যকে প্রতিষ্ঠিত করতে জেল খেটেছি এক মাস ১৩ দিন। সকাল হলেই কোর্ট থেকে উকিলেন ফোন আজ আপনার ওই মামলার হাজিরা আছে। অমুক মামলার সাক্ষি আছে। এই আমার প্রতিদিনের রুটিন। আমার পেছনে কোনো শিল্প গ্রুপ নেই, নেই কোনো বড় নেতার আর্শিবাদ তাই চাপটা স্বভাবত আমাদের উপর অনেক বেশিই। আমি কোন সংবাদিক বা সম্পাদকদের সংগঠনে নেই। অনেকের প্রশ্ন নেই কেন, আমি সবাইকে বলি আমার যোগ্যতা এখনো হয়নি বলে। সাঙ্গুকে থমকে দিতে প্রতিদিন নতুন ষড়যন্ত্র নতুন চক্রান্ত হয়। তবে সবেই হারিয়ে যায় সত্যের কাছে। সম্ভবত আমিই দেশের কনিষ্ঠতম সম্পাদক বয়সে এবং অর্থনৈতিক ভাবেও। একমাত্র আমারই পত্রিকা ছাড়া অন্য ব্যবস্যা নেই। আমার সন্তানের ৮ মাসের বেতন বাকি এখনো। স্ত্রীর সমস্ত স্বর্ণলংকার বন্ধক পড়ে আছে। তার পরেও আমি দৈনিক সাঙ্গুর প্রকাশনা একদিনের জন্যও বন্ধ রাখিনি। পাঠক এতো কষ্টের মাঝেও দৈনিক সাঙ্গু আজ ১৯ বছরে পা রাখল এটাই আমার জীবনের সব চেয়ে বড় অর্জন।
প্রিয় পত্রিকা দৈনিক সাঙ্গু। ১৮ বছর পূর্ণ হওয়া একটি পত্রিকার জন্য অনেক বড় ঘটনা। আমি/আমরা সেই ঘটনা ঘটিয়েছি। সংগত কারণেই এ নিয়ে আমরা আনন্দিত, গর্বিত। আমি/আমরা পেরেছি।
একটি বড় জায়গায় দৈনিক সাঙ্গুকে এনে দাঁড় করাতে পেরেছি। এই যাত্রায় আমাদের সঙ্গে ছিল অগণিত পাঠক আর শুভানুধ্যায়ী। মানুষের ভালোবাসা ছিল আমাদের প্রধান শক্তি। পাঠকসাধারণের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা রেখে পত্রিকাটি আমরা প্রকাশ করে গেছি। এই শ্রদ্ধা দৈনিক সাঙ্গু আজীবন বজায় রাখবে।
আমরা বিশ্বাস করি, পাঠকই দৈনিক সাঙ্গু’র সবচাইতে বড় শক্তি, বড় শ্রদ্ধার জায়গা। তাদের হাতে প্রতিদিন একটি গ্রহণযোগ্য পত্রিকা তুলে দেওয়ার চেষ্টা ১৮ বছর ধরে আমরা নিষ্ঠার সঙ্গে করে গেছি। আগামী দিনেও এই নিষ্ঠা দৃঢ়ভাবে বজায় রাখব।
আমাদের স্লোগান আমরা নিরপেক্ষ নই, সত্যের পক্ষে। এই স্লোগানের স্বাক্ষর আমরা দৈনিক সাঙ্গুতে রাখবার চেষ্টা করেছি। সংবাদের ভিতরকার সত্য সৎভাবে প্রকাশ করার চেষ্টা করেছি। অসততা আমাদের স্পর্শ করতে পারেনি। তবে আমরা নিরপেক্ষ নই। আমরা বাংলাদেশের ১৭ কোটি মানুষের পক্ষে। দেশের প্রতিটি সাধারণ মানুষ, প্রতিটি সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পক্ষে দৈনিক সাঙ্গু। চট্টগ্রামের মানুষই আমাদের মূলশক্তি। দৈনিক সাঙ্গু স্বাধীনতার পক্ষের পত্রিকা।
এক ঐতিহাসিক দিনে যাত্রা শুরু করেছিল দৈনিক সাঙ্গু।
শুধু পত্রিকা প্রকাশ করেই আমরা আমাদের দায়িত্ব শেষ করিনি। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আমরা সম্মানিত করেছি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের, সম্মানিত করেছি বীরাঙ্গনা মুক্তিযোদ্ধাদের। মুক্তিযুদ্ধে যেসব মা হারিয়েছেন তাঁদের বীর মুক্তিযোদ্ধা সন্তান, সেই মায়েদের আমরা সম্মাননা জানিয়েছি। মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে তুলে দিয়েছি অর্থ ও স্মারক।
করোনার এই অতিমারির কালেও পত্রিকার কার্যক্রম বিন্দুমাত্র ব্যাহত হতে দিইনি আমরা। অনেকেই বাসায় বসে কাজ করেছেন। আবার অনেকেই নিয়মিত অফিস করেছেন। আমাদের বহু সহকর্মী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। পরম করুণাময়ের দয়ায় কোনো প্রাণহানি আমাদের মধ্যে হয়নি। এসব বলার কারণ যেকোনো দুর্যোগ বা ঝড়ঝঞ্ঝা বা প্রতিকূলতার মধ্যেও দৈনিক সাঙ্গুকে বুক দিয়ে আগলে রাখার প্রবণতা এই পত্রিকার কর্মীদের সবার মধ্যেই দৃঢ়ভাবে বিদ্যমান।
বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ। উন্নয়নের জোয়ার বইছে দেশে। নিজস্ব অর্থায়নে তৈরি হচ্ছে পদ্মা সেতু। কর্ণফুলীর তলদেশে হচ্ছে টানেল। এ ছাড়া আরো কত বড় বড় প্রকল্পের কাজ চলছে। বঙ্গবন্ধু আমাদের হাতে তুলে দিয়েছেন বাংলাদেশ আর তাঁর কন্যা তৈরি করে দিচ্ছেন পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা। দেশের প্রতিটি অর্জন ও গৌরবকে আমরা দৈনিক সাঙ্গু’র মধ্য দিয়ে মানুষের কাছে তুলে ধরতে চাই। মানুষের প্রতি ভালোবাসা ও দায়বদ্ধতা নিয়ে সৎ ও সত্য সংবাদ পরিবেশনের মধ্য দিয়ে দৈনিক সাঙ্গু আমরা এগিয়ে নেব। আজকের এই শুভ দিনে আমাদের একমাত্র প্রতিজ্ঞা, দেশ ও মানুষের কল্যাণে নিবেদিত থাকবে দৈনিক সাঙ্গু।
পাঠক দৈনিক সাঙ্গু শুধু প্রিন্ট ভার্সনে নয় অনলাইনেও সমান সক্রিয়। আমাদের অনলাইন ইতোমধ্যে তথ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক নিবন্ধিত হয়েছে। সারাদেশের কয়েক হাজার পত্রিকার মধ্যে সরকার ৯২টি অনলাইন নিবন্ধন দিয়েছে। তার মধ্যে দৈনিক সাঙ্গু রয়েছে। এটাও কম কি! আমরা ২৪ ঘন্টা অননাইনের মাধ্যমে মুহূর্তের খবর পাঠকের কাছে তুলে ধরছি।
আমাদের পাঠক, শুভানুধ্যায়ী, লেখক, বিজ্ঞাপনদাতা ও দৈনিক সাঙ্গুকে যাঁরা ভালোবাসেন তাঁদের প্রত্যেককে শ্রদ্ধা, শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা।

Print Friendly and PDF

ফেইসবুকে আমরা