এই মাত্র পাওয়া :

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১

বাংলাদেশে প্রথম মহিলা মাদ্রাসা শিক্ষক ও শ্রেণিকক্ষ সংকটে পাঠদান ব্যাহত

বিভাগ : ফিচার প্রকাশের সময় :৭ জুন, ২০২১ ৪:২৪ : অপরাহ্ণ

লক্ষ্মীপুর জেলা প্রতিনিধি :

বাংলাদেশে প্রথম প্রতিষ্ঠিত মহিলা মাদ্রাসা হলো লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার চরবংশী ‘মাদ্রাসাতুল বানাত দালিখ মাদ্রাসা’। বর্তমানে এ মাদ্রাসাটি শিক্ষক সংকট, ঝুঁকিপূর্ণ ভবনসহ বিভিন্ন ধরণের সমস্যায় ধুঁকছে। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের দাবি ১৯৭৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় প্রথম এ মহিলা মাদ্রাসাটি। ১৯৯৩ সালে সৌদি সরকারের অর্থায়নে নির্মিত মাদ্রাসার দোতলা ভবনটি বর্তমানে খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। ঝুঁকি মাথায় নিয়েই চলছে পাঠদান কার্যক্রম। নতুন ভবন না থাকায় বারান্দায় ক্লাশ করছে ঐ প্রতিষ্ঠানের ছাত্রীরা।

সরেজমিন গিয়ে সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার উত্তর চরবংশী ইউনিয়নের চর ইন্দুরিয়া গ্রামে শিক্ষা বঞ্চিত নারীদের জন্য সাইক্লোন সেন্টারে মহিলা মাদ্রাসাটি ১৯৭৩ সালে স্থাপন করা হয়। নারী শিক্ষা বিস্তারের লক্ষ্যে মহিলা মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন, তৎকালীন শিক্ষানুরাগী হাফেজ সালেহ আহমেদ এম.এ। এ সময় ৬জন শিক্ষক ও প্রায় ৫০জন ছাত্রী নিয়ে কার্যক্রম শুরু হয়। সময়ের ব্যবধানে মাদ্রাসার জন্য আরো দুই ব্যক্তি ২০ শতাংশ জমি দান করেন। বর্তমানে মাদ্রাসার নামে এক একর সম্পত্তি রয়েছে। ১৯৭৭ সালে প্রতিষ্ঠানটি এমপিওভুক্ত হয়।

মহিলা মাদ্রাসার সুপার মাওলানা মোঃ আলী আশরাফ বলেন, বর্তমানে মাদ্রাসায় শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী ১৬জন রয়েছেন। কিন্তু পাঁচ শতাধিক ছাত্রীদের জন্য তা অপর্যাপ্ত। এখনো ৮জন শিক্ষকের পদ শূণ্য রয়েছে। এছাড়া নতুন ভবন না থাকায় ছাত্রীদের বসার যায়গা দেওয়া যাচ্ছে না বলে প্রায় সময়ই বারান্দায় ক্লাশ করতে হয়।

মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি গাজী মোঃ নাজিমউদ্দিন বলেন, পর্যাপ্ত সরকারী সুযোগ-সুবিধা ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন না হওয়ায় শিক্ষার মানোয়ন্নয়ন হচ্ছে না। এছাড়া সীমানা প্রাচীর না থাকায় শিক্ষার্থীরা বখাটেদের উত্যক্তের শিকার হচ্ছে। বিষয়গুলো সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য লিখিত আবেদন জানানো হয়েছে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এ.কে.এম সাইফুল হক বলেন, শিক্ষক ও শ্রেণিকক্ষ সংকটের কারণে পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে, বিষয়টি আমরা অবগত। সংকট সমাধানের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ করে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Print Friendly and PDF

ফেইসবুকে আমরা