এই মাত্র পাওয়া :

ঢাকা, রোববার, ২৫ জুলাই ২০২১

মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে এলাকার নারী পুরুষ ফুসে উঠেছে

মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ

বিভাগ : গণমাধ্যম প্রকাশের সময় :৯ জুন, ২০২১ ৬:২৫ : অপরাহ্ণ

বগুড়া প্রতিনিধি :
বগুড়া শহরের মালতিনগর দক্ষিনপাড়া ও চকলোকমান এলাকায় চিহিৃত মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে এলাকার নারী পুরুষ ফুঁসে উঠেছে। মাদক ব্যবসায়ীদের অত্যাচারে এলাকার মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। এলাকার প্রায় প্রত্যেক ঘরে ঘরে মাদক ঢুকে পড়েছে। ছেলে মেয়ে নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছে মানুষ। অন্যদিকে মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রন নিয়ে প্রতিদিনই পাড়ায় সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটছে। কিন্তু কিছুতেই মাদক ব্যবসা ধামছে না। অভিযোগ রয়েছে, এলাকার কিছু চিহিৃত সন্ত্রাসী মাদক ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা করায় অনেকেই প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছে না। এছাড়া মাদক ব্যবসায় দু’একজন পুলিশ ও পুলিশ কর্মকর্তার সহযোগিতা রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় মালতিনগর দক্ষিনপাড়া ও চকলোকমান উত্তরপাড়া মাদক ও সন্ত্রাস নির্মূল কমিটির উদ্যোগে মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীদের মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
সন্ত্রাস ও মাদক নির্মূল কমিটির আহবায়ক খায়রুল ইসলাম মুক্তির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, শাজাহানপুর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ ভিপি এম সুলতান আহমেদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, শাজাহানপুর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হেফাজত আরা মিরা, বগুড়া পৌরসভার ২১নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল কুদ্দুস ডিলু ধুনটের চিকাশী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নামমূল কাদির শিপন।
দুপচাঁচিয়া মহিলা ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক মো. মাহমুদুল বারির সঞ্চালনায় মানববন্ধনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, মাদক ও সন্ত্রাস নির্র্মূল কমিটির যুগ্ম আহবায়ক শাকিল হাসান সঞ্জয়, মাহবুব আলম জিয়ন, হাফিজুল ইসলাম তরুন, পুলিশ লাইন্স স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক আব্দুর রহমান, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সহ-সভাপতি মতিয়ার রহমান বাবলু, মালতিনগর দক্ষিণ পাড়া ও চকলোকমান উত্তরপাড়া গ্রাম উন্নয়ন কমিটির সভাপতি আরিফুজ্জামান প্রমুখ।
সমাবেশে প্রধান অতিথি বলেন, আমরা সবাই মাদকের বিরুদ্ধে সোচ্চার হবো। সর্বনাশা নেশার চোরাস্রোতে তলিয়ে যেতে বসেছে আমাদের তরুণ সমাজ। মাদকাসক্তের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। চিন্তিত হয়ে পড়েছেন অভিভাবকরা। মাদক পাচার এবং মাদকাসক্তির হার কমানোর জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন সরকার। সমাজ থেকে মাদক নির্মূলে সরকারের পাশাপাশি সাধারণ জনগণকে এগেিয় আসতে হবে। এজন্য জরুরি হয়ে পড়েছে সবার সম্মিলিত উদ্যোগ, মাদকের বিরূপ প্রভাব সম্পর্কে সবার মধ্যে সচেতনতা তৈরি। মাদকের বিরুদ্ধে সচেতনতা সৃষ্টি ও মাদকের ভয়াল থাবা থেকে যুবসমাজকে দূরে রাখতে আমাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে।
তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন। যার ফলে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী পরিচালিত মাদকবিরোধী অভিযান অব্যাহত রেখেছে। এ অভিযানে সকল স্তরের মানুষের সহযোগিতা থাকলে প্রকৃত মাদক চোরাচালানকারীরাও রেহাই পাবে না। সন্ত্রাস আর জঙ্গিবাদের মতো মাদকও একটি আন্তঃরাষ্ট্রীয় সমস্যা, যা কোনো একটি দেশের পক্ষে একা মোকাবিলা বা নির্মূল করা সম্ভব নয়। তাই আসুন আমরা সকলে মিলে মাদকের ভয়াল থাবা থেকে যুবসমাজকে রক্ষা করি এবং মাদকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ি।
বক্তারা মাদক ব্যবসায়ী সোহান, রাসেল, .সাদ্দাম, জুয়েল, জাকির, সুজন ও মনির সহ অন্যান্য মাদক ব্যবসায়ীদের হুশিয়ারী করে দিয়ে বলেন, মাদক ব্যবসা ছেড়ে ভাল হয়ে যান। নইলে এলাকার নারী পুরুষ ঐক্যবদ্ধ হয়ে আপনারদের এলাকা ছাড়া করবে। এই এলাকায় আপনাদের থাকতে দেয়া হবে না।

Print Friendly and PDF

ফেইসবুকে আমরা