এই মাত্র পাওয়া :

ঢাকা, শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১

ধ্বংসের দারপ্রান্তে সৈয়দপুরের ঐতিহ্য বাহী ফাইলেরিয়া হাসপাতাল এন্ড সি.ডি.সি

বিভাগ : এক্সক্লুসিভ প্রকাশের সময় :১০ জুলাই, ২০২১ ৪:৩৩ : অপরাহ্ণ

মোতালেব হোসেন, নীলফামারী :
১৯৯৭ইং সালে নতুন বাবুপাড়া ভাড়া বাসায় হাসপাতালের কার্যকম চালু করেন। পরবতীতে ধলাগাছ কামারপুকুর নিবাসী মৃত: কবির উদ্দিন সরকার, মূলবান ১৫শতক জমি হাসপাতালের নামে দানপত্র করলে হাসপাতালটি দান কৃত জমির উপর স্থানতরিত হয়। হাসপাতাল পরিচালনা মূল দায়ীত্ব কর্মকতা দুর্নীতিবাজ ডাঃ মোয়াজ্জেম হোসেন চেয়ারম্যান, আইএসিএইবি তিনি বিভিন্ন দাতা সংস্থা (জাইকা) জাপান সরকার, কেনাডিয়ান সরকারের অনুদান প্রাপ্ত টাকা আরও জমি ক্রয় করার জন্য ব্যয় করেন। টাকা তুলে সুকোশলে অসৎ উদ্দেশে জমি ক্রয় করেন নিজ নামে উক্ত জমি গুলি হাসপাতালের মূল ভবণের সংঙ্গে। হাসপাতাল পুরোদমে চালু হলে এবং বিভিন্ন দাতা সংস্থার টাকা দুনিতি উদ্দেশে হাসপাতালের একাউন্টে জমা না করে ন্যাশনাল ব্যাংকে নিজ একাউন্টে জমা করেন। হাসপাতালটি তৈরীর সময় সুকৌশলে সামনে অংশে ২টি মেইন গেট নির্মান করেন। একটি তার নিজ নামের জমি গেট অপরটি মূল হাসপাতালটির গেট। ২০১২ইং সালে পুলিশের তদন্তে দুর্নীতিবাজ ডাঃ মোয়াজ্জেম এর বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অপকর্ম বিষয়ে পুলিশে তদন্তে তিনি দোষী প্রমানিত হয় যার প্রতিবেদন পুলিশ সুপার বারাবর দাখিল করা হয়। ২০১৯ইং সালে স্থানীয় জনগণ দুর্নীতিবাজ ডাঃ মোয়াজ্জেম হোসেনের হাসপাতাল পরিচালনার নামে লুটপাটের খবর জানতে পারলে আন্দলোন শুরু করলে তিনি হাসপাতালের ৩টি এম্বুলেন্সের মধ্যে ২টি এম্বুলেন্স ও ন্যাশনাল ব্যাংকে রক্ষিত হাসপাতালে বিদেশী প্রাপ্ত অনুদান তিন কোটি টাকা অপরেশন থিয়েটারের মূলবান যন্ত্রপাতী নিয়ে ঢাকা পালিয়ে যায়। তিনি পালিয়ে গেলেও সুকোশলে তার প্রভাব ও সম্পদ কুখ্যিগত করার স্বার্থে স্থানীয় এজেন্ট দিয়ে হাসপাতালটির দখল রেখেছেন তার প্রথম এজেন্ট স্থানীয় ডাঃ সুরত আলী বাবু, মৃত বরণ করলে বর্তমান তিনি নতুন খেলায় হাসপাতালটির পরিচালনার দায়ীত্ব দিয়েছেন বাংলাদেশ প্যারামেডিকেল ডাক্তার এ্যাসোসিয়েশন (বিপিডিএ) ডাঃ তুহিনের সাথে সমঝতা স্বাক্ষর করেন এবং তত্ত্বাবধানে রয়েছেন দুর্নীতিবাজ ডাঃ মোয়াজ্জেম হোসেন। অনুদানে টাকায় কেনা নিজ নামীয় জমি বিক্রয় উদ্দেশে নাম মাত্র লোক দেখানো কমিটি বানিয়ে স্থানীয় জনগণকে বোকা বানানো চেষ্টা করছেন। স্থানীয় হাসপাতালের কমচারীরা জানান গত ১১মাস ধরে তারা কোন বেতন পাচ্ছেন না। অথৎ গোপন সুত্রে জানা যায় দুর্নীতিবাজ ডাঃ মোয়াজ্জেম হোসেন ২৯শতক জমি গোডাউন সহ বিক্রয় করে দিয়েছেন যাহা সাব রেজিষ্টারকে ঢাকায় নিয়ে গিয়ে দলিল করা হয়েছে জমি ক্রেতা হচ্ছেন মোঃ বাবুল হোসেন, পিতাঃ কবির উদ্দিন সরকার, বলে জানা যায়। এব্যাপারে স্থানীয় যুবলীগ নেতা কাজলের সাথে কথা বললে তিনি এই রকম ঘটনা শুনেছেন তিনি চান হাসপাতালটি সরকারীভাবে অধিগ্রহন করে পরিচালনা করার জন্য পাশাপাশি হাসপাতালটি বিদেশী অর্থ অত্বসাত করার অপরাধে দুনিতীবাজ ডাঃ মোয়াজ্জেম সহ তার সকল সহযোগীর বিরুদ্ধে দুদক কতৃক তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা জন্য। এই সকল ব্যক্তির কারণে আজকে আমাদের সৈয়দপুরের সুনাম খুন এবং হাসপাতালটি ধ্বংষের দ¦ারপ্রান্তে। আর জানা যায় জনবল নিয়োগের জন্য বিশাল বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে। যা সম্পূর্ন রুপে কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার বাণিজ্য করার উদ্দেশে।

Print Friendly and PDF

ফেইসবুকে আমরা